Category: ব্যক্তিগত অর্জন

কৃতি বুয়েটিয়ানঃ স্থপতি রফিক আজম

সম্প্রতি "লিডিং ইউরোপিয়ান আর্কিটেক্ট ফোরাম" (www.arena-international.com/leafawards/) থেকে ২০১২ সালে "S.A Residence" রেসিডেন্স প্রপার্টির জন্যে এই পুরস্কার পেয়েছেন স্থপতি রফিক আজম। আমরা তাকে অভিনন্দন জানাই দেশের বাইরের এরকম একটা মর্যাদাপূর্ন প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করে বিজয়ী হবার জন্যে।   LEAF অ্যাওয়ার্ড ছাড়াও স্থপতি রফিক আজমের পুরস্কার তালিকায় রয়েছে আরো অসংখ্য পুরস্কারঃ

  1. 2012: Winner of Emirates Glass Leading European Architects’ Forum (LEAF) Award
  2. 2012: Winner of World Architectural Community Award, 11th Cycle
  3. 2012: The South Asian “Architect of the Year” Award, 2011
  4. 2009: Winner, Cityscape Architecture Award for the” project S.A Residence”, Dhaka.
  5. 2008: Winner, 1st cycle, World Architecture Community Award.
  6. 2007: The 2007 Kenneth F. Brown, Asia Pacific Culture & Architecture Design Award. USA.
  7. 1999: Young Architect’s Award in the South Asian Architecture Award.[citation needed]
  8. 1996: IAB Design Award, awarded by the Institute of Architects Bangladesh[citation needed]
  9. 1991: Winner, Mimar International Design Competition-VII, London.[citation needed]
  রফিক আজমের করা কাজের মাঝে রয়েছে মেঘনা রেসিডেন্স, করিম রেসিডেন্স তবে তার করা কাজের মাঝে সবচেয়ে বিখ্যাত "S A Residence", স্কোয়ার আকৃতির একটি রেসিডেন্স যেটি সিঙ্গেল ম্যাটেরিয়াল-কাস্ট কনক্রিটে তৈরী। এর একটি ছবি নিচে দেয়া হলোঃ  আরো ছবির জন্যে এই লিংকটি দেখতে পারেনঃ http://www.homedsgn.com/2011/10/20/sa-residence-by-shatotto-architects/   তিনি ১৯৮৯ সালে বুয়েট থেকে পাশ করেন এবং প্রথম খ্যাতি লাভ করেন তার ফ্যামিলি হাউজের রিনোভেশন প্রজেক্ট দ্বারা। ১৯৯৫ সালে তিনি তার নিজের প্রতিষ্ঠান "SHATOTTO architecture for green living” (সাতত্য) প্রতিষ্ঠা করেন। রফিক আজমের জন্ম ১৯৬৩ সালে লালবাগে, নয় ভাইবোনের মাঝে তিনি ষষ্ঠ। ছোটবেলা থেকে চিত্রশিল্পী হবার ইচ্ছা আর তার বাবা'র প্রকৌশলী ইচ্ছা এই দু'য়ের সামঞ্জস্যে তিনি স্থাপত্যে ভর্তি হন বুয়েটে এবং তার ভাষাতে তিনি এজন্যেঃ ‘ঘটনাচক্রে স্থপতি’। তিনি তার মা এর কাছে যা শিখেছেন তার কাজের মাঝে সেটি সবসময়ই প্রতিফলিত হ, একারণেই তিনি দোতালায় করেছেন বাগান যেটি বাংলাদেশে প্রথম। তিনি নিজের কাজের পাশাপাশি খন্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে বাংলাদেশ, সিঙ্গাপুর, পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশে পড়াচ্ছেন এবং দেশে বিদেশে অসংখ্য সেমিনার করেছেন। ব্যক্তিগত জীবনে স্ত্রী এবং একমাত্র সন্তান আরাফকে নিয়ে রফিক আজমের সংসার। স্ত্রী ড. আফরোজা আক্তার কাজ করছেন জাতিসংঘে আর ছেলে আরাফ ইংরেজি মাধ্যমে দ্বাদশ শ্রেণীতে পড়ে। আমার স্থপতি রফিকের উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করি।   ref: wikipedia, prothom-alo